পিরোজপুর ইউনিয়নে বাবুল ওমরের আনারসের পক্ষে ইঞ্জিনিয়ার মাসুমের ভোট প্রার্থনা

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদের ভোট গ্রহণ আগামী ২১ মে। নির্বাচনে স্থানীয় এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত ও সাবেক এমপি লিয়াকত হোসেন খোকার সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী বাবুল ওমর বাবুর আনারস প্রতীকের পক্ষে পুরোদমে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম।

১৮ মে শনিবার পিরোজপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডে আনারস প্রতীকের পক্ষে কয়েক হাজার নেতাকর্মী সমর্থক ও সাধারণ জনগণকে নিয়ে শোডাউন করে বাবুল ওমর বাবুর আনারস প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী গণসংযোগ করেছেন তিনি। এ সময় কর্মী সমর্থকেরা নেচে গেয়ে বাশি বাজিয়ে আনারসের পক্ষে গণসংযোগ ও ভোট প্রার্থনা করেছেন।

ইজ্জত রক্ষার লড়াইয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে ১০জন ইউপি চেয়ারম্যান!

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা পড়েছেন বিরাট চ্যালেঞ্জে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আনারস প্রতীকের প্রার্থী বাবুল ওমর বাবুকে স্থানীয় এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাতের সমর্থনের কারনে চেয়ারম্যানরাও নেমেছেন আনারসের পক্ষে। যেখানে অধিকাংশ চেয়ারম্যানরা আনারসের পক্ষে প্রকাশ্যে নামলেও বেশকজন আবার ভিন্ন কৌশল নিয়েছেন। একই প্রার্থীকে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও এ আসনের দুইবারের সাবেক সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকাও সমর্থন করায় এখানকার জাতীয় পার্টির একজন চেয়ারম্যানও আছেন ওই আনারসের পক্ষে। কেউ কেউ নীরব ভুমিকায় থাকলেও দোটানায় বেশ বেকায়দায় পড়েছেন তারাও। স্থানীয় আওয়ামীলীগ দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে দুই প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী মাঠে, সেখানে ইউপি চেয়ারম্যানরা আছেন আলোচনার খোড়াকে।

এর কারন হিসেবে স্থানীয়রা জানান, নির্বাচনের শুরুতেই বারদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লায়ন মাহবুবুর রহমান বাবুল এক ঘরোয়া বৈঠকে দাবি করেছেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী বাবুল ওমর বাবুর আনারস মার্কাকে এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত সমর্থন করেছেন। তিনি যে কারনে আনারসের পক্ষে কাজ করার মত প্রকাশ করেন। ওই বৈঠকে ছিলেন বারদী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জহিরুল ইসলাম নিজেও। এরপর আনারসের পক্ষে মাঠে নামেন কাঁচপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ ওমর, সনমান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ হাসান জিন্নাহ, পিরোজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান মাসুম ও জামপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির ভুঁইয়া। মুলত এই কজন ইউপি চেয়ারম্যান পুরোদমে আনারসের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

এদের ছাড়াও বৈদ্যেরবাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আল আমিন সরকার, সাদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ ভুঁইয়া, শম্ভুপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামসুল আলম সামসু আনারসের পক্ষে কাজ করলেও তারা প্রকাশ্যে ততটা আলোচনায় নেই। লিয়াকত হোসেন খোকার সমর্থনের কারনে আব্দুর রউফ আছেন আনারসের পক্ষেই। তবে মোগরাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফ মাসুদ বাবুর অবস্থান ঘোলাটে। তিনি মাহফুজুর রহমান কালামের ঘোড়া মার্কার পক্ষে কিনা সেটা কেউ হলফ করে বলতে না পারলেও তিনি যে আনারসের পক্ষে কাজ করছেন না সেটা অনেকেই নিশ্চিত করেছেন। তিনি কায়সার হাসনাতের চাচা। গত ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে গিয়ে বাবুকে চেয়ারম্যান পদে জয়ী করতে কাজ করেছিলেন কায়সার হাসনাত। কিন্তু সেই আরিফ বাবু এখন কায়সার হাসনাতের সিদ্ধান্তের পক্ষে নেই।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম লড়ছেন ঘোড়া প্রতীকে। যেখানে ইউপি চেয়ারম্যানরা তার বিরুদ্ধে। ইতিমধ্যে হুমকি ধমকির অভিযোগে থানায় চেয়ারম্যান মাসুম ও চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির ভুঁইয়া জিডিও করেছেন। অনেকে মনে করছেন আরিফ মাসুদ বাবু ছাড়া বাকি ৯জন চেয়ারম্যান ভোটের দিন ঠিকিই আনারসের পক্ষে কাজ করবেন। কারন স্থানীয় এমপির সঙ্গে সুসম্পর্ক ছাড়া ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হবে। এসব হিসেবের মাঝে বড় হিসেব হয়ে দেখা দিয়েছে- আনারসের পক্ষে কাজ করার পরেও যদি কালামের ঘোড়ার জয় হয় তাহলে তাদের প্রেসটিজের কি হবে? যে কারনে বেশ চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছেন ইউপি চেয়ারম্যানরা।

আড়াইহাজারে ট্রাক চাপায় ইলেকট্রিশিয়ানের মর্মান্তিক মৃত্যু, রাস্তা অবরোধ

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে নরসিংদী -মদনগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের নোয়াপাড়া এলাকায় ট্রাক চাপায় আড়াইহাজার পৌরসভা ঋফজপহা ইলেকট্রিশিয়ান ফারুক নিহত হয়েছেন। ১৮ মে শনিবার সকাল ১০টায় এ ঘটনা ঘটার পর থেকে প্রায় দুই ঘন্টা স্থানীয় লোকজন সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ করে। তারা ঘাতক ট্রাকটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। নিহত ফারুক উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের তোতা মিয়ার ছেলে।

আড়াইহাজার থানার ওসি মোহাম্মদ আহসানউল্লাহ জানান, ওই সময় ফারুক তার বাড়ী থেকে রাস্তার পাশ দিয়ে পায়ে হেঁটে আড়াইহাজার বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় চট্টগ্রাম থেকে নরসিংদীর দিকে যাওয়ার পথে একটি মালবাহী ট্রাক তাকে একটি গাছের সাথে চাপা দিলে গাড়ী ও গাছের মাঝখানে পড়ে ফারুকের করুণ মৃত্যু ঘটে। পরে পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন গাছ কেটে তার লাশ উদ্ধার করেন।

ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ জনতা ওই সড়কে বিক্ষোভ করে প্রায় দুই ঘন্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখে এবং ঘাতক ট্রাকটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয় এবং সড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

যুবদলের ‘স্লোগান মাষ্টার’ ইউনুস খান বিপ্লবের মৃত্যুতে কাউন্সিলর খোরশেদের শোক

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সাবেক সহ সভাপতি ইউনুস খান বিপ্লবের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। ১৭ মে শুক্রবার সকালে ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

শোক বার্তায় কাউন্সিলর খোরশেদ এক বিবৃতিতে বলেন, বিপ্লব মামা ছিলেন আমার বাল্য বন্ধু। সরকার বিরোধী প্রতিটি আন্দোলনে তার ভূমিকা অতুলনিয়। তার স্লোগানে নারায়ণগঞ্জ সহ ঢাকা নগরীর রাজপথ কম্পিত হতো। তার এইভাবে চলে যাওয়া মেনে নেওয়ার মত নয়। তাহার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি ও তার পরিবারকে ধৈর্য্য ধারণ করার জন্য আল্লাহ পাকের রহমত কামনা করি।

আগামী ২০ মে রোজ সোমবার গলাচিপা রেললাইন জামে মসজিদে বাদ আছর মরহুমের রুহের মাগফেরাতের জন্য দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত দোয়া মাহফিলে মরহুমের সহযোদ্ধা, বন্ধু বান্ধবদের উপস্থিত থাকার জন্য কাউন্সিলর খোরশেদ সবিনয় অনুরোধ করছেনে।

র‌্যাবের অভিযানে চোরাই মোবাইল ক্রয়-বিক্রয় চক্রের ৭জন গ্রেপ্তার

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

র‌্যাব-১১ অভিযান পরিচালনা করে চোরাই মোবাইল ফোনের আইএমইআই পরিবর্তন ও ক্রয়-বিক্রয় চক্রের ৭ জন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে এবং একই সঙ্গে বিপুল পরিমান চোরাই মোবাইল উদ্ধার করা হয়। ১৮ মে শনিবার বিকেলে এ তথ্য জানান র‌্যাব-১১ এর মিডিয়া অফিসার, এএসপি সনদ বড়ুয়া।

তিনি জানান, নিয়মিত টহলের অংশ হিসাবে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১, সিপিএসসি কোম্পানী, নারায়ণগঞ্জ এর একটি আভিযানিক দল গত ১৭ মে নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও থানাধীন কাচঁপুর এলাকার বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে। উক্ত অভিযানে বিভিন্ন কোম্পানীর পুরাতন ৫৭টি চোরাই মোবাইল ফোন উদ্ধার ও চোরাই মোবাইল বিক্রয়ের নগদ-৪৩ হাজার ৪৬০ টাকা’সহ চোরাই মোবাইল ফোনের আইএমইআই পরিবর্তন ও ক্রয়-বিক্রয়কারী চক্রের ৭ জন সক্রিয় সদস্যদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত আসামীরা হলো- মুন্না গাজী,মোঃ দুলাল হোসেন, মোঃ আলাউদ্দিন বেপারী, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ শরীফ, মোঃ জুয়েল, মোঃ সোহাগ আলী।

র‌্যাব আরো জানায়, তারা পেশাদার চোরাই মোবাইল ফোন ক্রয়-বিক্রয়কারী। তারা বিভিন্ন মোবাইল ছিনতাইকারীদের কাছ থেকে অল্প দামে চোরাইকৃত মোবাইল ক্রয় করে আইএমইআই পরিবর্তনের মাধ্যমে দীর্ঘদিন যাবৎ সোনারগাঁও কাঁচপুর ও আশপাশের এলাকায় গোপনে অবৈধভাবে চোরাই মোবাইল ফোন ক্রয়-বিক্রয় করে আসছে। অবৈধভাবে চোরাই মোবাইল ফোন ক্রয়-বিক্রয়কারী চক্রের বিরুদ্ধে র‌্যাব-১১ এর অভিযান অব্যহত থাকবে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

 

সোনারগাঁয়ে ভোট বর্জনের দাবিতে নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির লিফলেট বিতরণ

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ আগামী ২১ মে। নির্বাচন বর্জনের দাবিতে লিফলেট বিতরণ করে যাচ্ছে বিএনপি। তারই ধারাবাহিকতায় ১৮ মে শনিবার নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি ভোট বর্জনের দাবিতে লিফলেট বিতরণ করেছে।

বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সোনারগাঁও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আজহারুল ইসলাম মান্নানের নির্দেশনায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, একদফা দাবী আদায়, উপজেলা নির্বাচন সহ সকল স্থানীয় সরকার নির্বাচন বর্জন ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও’ সম্বলিত লিফলেট সোনারগাঁ উপজেলা আওতাধীন নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি’র উদ্যোগে পরমেশ্বরদী পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সাধারণ জনগণের মাঝে বিতরণ করা হয়।

এ সময়ে এতে উপস্থিত ছিলেন, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি’র বিএনপি’র সভাপতি ডাঃ মিজানুর রহমান, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি’র সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন নাসু, বারদী ইউনিয়ন বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর মেম্বার, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি যুগ্ম সম্পাদক গোলজার হোসেন, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক পারভেজ, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ওমর ফারুক, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি মোমতাজ উদ্দীন, সাধারণ সম্পাদক গোলজার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান মৃধা, নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড বিএনপি সিনিয়র সহ সভাপতি জসিম উদ্দিন, নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান, নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি নেতা মিলন, রিদয়, আসাদুল্লাহ, ইয়ামিন রহমান শিশির, বাবুল, মনির, ফারুক, আনোয়ার, কামাল,সহ নোয়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি’র নেতৃবৃন্দ।

জাপার ঘোষণা, বিএনপির বর্জন: ভোটাভুটিতে আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপে মহাযুদ্ধ!

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ আগামী ২১ মে। নির্বাচনকে সামনে রেখে রীতিমত সরকারি দল আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মাঝে মহাযুদ্ধ শুরু হয়েছে। পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে রাজনৈতিক শিষ্টাচারও হারিয়ে ফেলছেন আওয়ামীলীগ নেতারা। অকথ্য অশ্রাভ্য ভাষায় গালিগালাজ, কুলাঙ্গার, মীরজাফর, বেঈমান, রাজাকার, রাজাকারের ছেলে- এরকম নানা অশ্রাব্য অকথ্য ভাষায় একে অপরকে ঘায়েল করার অপচেষ্টা চলছে। সিনিয়র জুনিয়র কেউ কাউকে সমীহ করছেন না। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের পেছনে নিজেদের ক্ষোভ কিংবা ভিন্ন উদ্দেশ্য হাসিলে একজন আরেকজনকে ছোট করে বক্তৃতা দেয়া হচ্ছে এখানে।

একই সঙ্গে থানায় জিডি অভিযোগ ও এলাকায় পাল্টাপাল্টি মানববন্ধনও করা হয়েছে। চরম এক উত্তেজনার মাঝে চলছে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা। এ যেনো নির্বাচন নয়, মহাযুদ্ধ শুরু হয়েছে। এরি মাঝে বিএনপি ভোট বর্জনের দাবিতে লিফলেট বিতরণে মাঠে নেমেছেন। কয়েকদিন পূর্বে জাতীয় পার্টিও একজন প্রার্থীকে সমর্থন ঘোষণা করেছে। স্থানীয় এমপি সরাসরি কারো পক্ষে ঘোষণা না দিলেও তার অবস্থান একজন প্রার্থীর পক্ষে পরিষ্কার। এমন পরিস্থিতিতে দূর্বল দুই প্রার্থী নির্বাচন থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে সরে না দাঁড়ালেও তারা যেনো হারিয়ে গেছেন ভোটের মাঠ থেকে। ফলে এখানকার নির্বাচন হচ্ছে আনারস প্রতীক বনাম ঘোড়া।

স্থানীয়রা জানান, সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতীকে বাবুল ওমর বাবু, ঘোড়া প্রতীকে মাহফুজুর রহমান কালাম, মটর সাইকেল প্রতীকে রফিকুল ইসলাম নান্নু ও দোয়াত কলম প্রতীকে আলী হায়দার চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতায় রয়েছেন। তবে স্থানীয় এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত সরাসরি কাউকে সমর্থণ ঘোষণা না করলেও তার অনুগত বেশকজন নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যানরা বাবুল ওমর বাবুর পক্ষে সমর্থনের বিষয়টি দাবি করেন। সেমতে তারা আনারসের পক্ষে কাজ করছেন বলেও দাবি করেন। এরি মাঝে এই আসনের দুইবারের সাবেক এমপি লিয়াকত হোসেন খোকাও তার নেতাকর্মীদের নিয়ে রয়েল রিসোর্টে বৈঠক করে বাবুল ওমর বাবুকে সমর্থন ঘোষণা করেন।

এই সমর্থন ঘোষণার পর রফিকুল ইসলাম নান্নু ও আলী হায়দার ভোটের আগেই ভোটের মাঠ থেকে ছিটকে পড়েছেন। যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে তারা এখনো নির্বাচনে রয়েছেন। কিন্তু পুরো সোনারগাঁ জুড়ে কালাম ও বাবুর নির্বাচনী আলোচনাই বেশি। স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে কাজ করছেন। নির্বাচনী কাজ করতে গিয়ে দুই গ্রুপের মাঝে রীতমত যুদ্ধ শুরু হয়েছে। যেখানে উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি গাজী মজিবুর রহমানের এক বক্তব্যের জের করে উপজেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি সাগর থানায় জিডি করেছেন। দাবি করা হয় গাজী মজিবুর রহমান এমপিকে কটুক্তি করেছেন। একইভাবে উপজেলা প্রেস ক্লাবের সামনে গাজীর বিরুদ্ধে মানববন্ধন করে নানা ধরণের কটাক্ষ করে গাজীকে নিয়ে বক্তব্য দেয়া হয়। গাজী মজিবুর রহমানও পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি পরিষ্কার করেছেন্

অন্যদিকে বাবুল ওমর বাবুর একটি বক্তব্যের ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তুমুল সমালোচনা শুরু হয়। যেখানে জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর চৌধুরী বিরুকে নিয়ে অশ্রাব্য অকথ্য ভাষায় নোংরা গালিগালাজ করতে দেখা যায় বাবুকে। বাবুর নির্বাচনী উঠান বৈঠকে এমন নোংরা গালিগালাজ মেনে নিতে পারছেনা স্থানীয় নেতাকর্মীরা। তারা আবার বাবুর বিরুদ্ধে সাদিপুর রোডে তালতলা এলাকায় মানববন্ধন করেছেন। এর আগে থেকেই কালাম ও বাবুর পাল্টাপাল্টি বক্তব্য চলে আসছিল। এর আগে নির্বাচনের শুরু থেকেই কালাম অপর প্রার্থী বাবুকে সন্ত্রাস চাঁদাবাজ ধান্ধাবাজ আখ্যায়িত করে আসছিলেন। এসব বিষয়ের মাঝে সিনিয়র নেতাদের অসম্মান করে শিষ্টাচার না মেনে নানা ধরণের বক্তব্য দিচ্ছেন জুনিয়র নেতারা।

গাজীর মত যারা বিএনপি জামাত জোট সরকার আমলে নির্যাতনের শিকার, সেই সময় যারা শিশু তারাও আজকে গাজীর মত নেতাদের নিয়ে অকথ্য অশ্রাব্য ভাষায় বক্তৃতা দিচ্ছেন। ভোট যুদ্ধের চেয়ে এখানে ব্যক্তিগত রেশারেষি ও আক্রোশ অনেকের বক্তব্যে ফুটে ওঠেছে। অনেকে দাবি করছেন সামনে পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে গাজীকে দমাতে একজন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী কৌশল নিয়েছেন গাজীর বিরোধীতার জন্য। নিজেদের স্বার্থ হাসিলে উপজেলা নির্বাচনকে ব্যবহার করছেন কেউ কেউ। সব মিলিয়ে সোনারগাঁও উপজেলা আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের মাঝে যেনো মহাযুদ্ধ!

র‌্যাবের অভিযানে অপহরণকারী চক্রের ৪জন গ্রেপ্তার

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

র‌্যাব-১১ অভিযানে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা’সহ ৪ জন অপহরণকারী গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একই সঙ্গে অপহৃত ২জন ভিকটিম উদ্ধার করা হয়। ১৪ মে মঙ্গলবার বিকেলে এ তথ্য জানান র‌্যাব-১১ এর মিডিয়া অফিসার, এএসপি সনদ বড়ুয়া।

তিনি জানান, র‌্যাব-১১, সিপিএসসি, নারায়ণগঞ্জ কর্তৃক একটি বিশেষ অভিযানে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানা এলাকা হতে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা’সহ ৪ জন অপহরণকারী গ্রেপ্তার এবং অপহৃত ২ জন ভিকটিম উদ্ধার।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায় যে, অত্র মামলার ভিকটিম মোঃ নাজমুল ও মোঃ মুন্না দুই জনই পেশায় মোটর মেকানিক। ভিকটিম নাজমুলের চিটাগাং রোডে ট্রাক স্ট্যান্ডের পাশে একটি গাড়ির মেরামতের ওয়ার্কশপ রয়েছে।

গত ১৩ মে সকাল আনুমানিক ৯টার সময়ে গ্রেফতারকৃত আসামীগণ গাড়ি মেরামতের কথা বলে ভিকটিম নাজমুল ও তার দোকানের কর্মচারী মুন্নাকে রূপগঞ্জ থানার মুড়াপাড়া এলাকায় নিয়ে যায় এবং সেখানে ভিকটিমদ্বয়কে আটক করে রাখে। পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃত আসামিরা ভিকটিম মোঃ নাজমুল এর ব্যবহৃত মোবাইল থেকে ভিকটিমের ভগ্নিপতি এর নিকট মুক্তিপণ হিসাবে ৩ লক্ষ টাকা দাবি করে এবং টাকা না পেলে অপহরণকারীরা ভিকটিমদের হাত-পা ভেঙে নদীতে ফেলে দেবে বলে বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করে। এই বিষয়ে ভিকটিম মোঃ নাজমুল এর ভগ্নিপতি বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করে।

এই অপহরণের সাথে জড়িত চক্রটির মূলহোতা মোঃ সজীব মিয়া’সহ চক্রের অন্যান্য সদস্যদের গ্রেফতার লক্ষ্যে র‌্যাব-১১, নারায়ণগঞ্জ, সিপিএসসি কোম্পানি এর একটি চৌকশ গোয়েন্দা টীম যথাযথ গুরুত্বের সঙ্গে তাদের অবস্থান সনাক্ত পূর্বক গ্রেফতারের চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা আসামী মোঃ সজীব মিয়া, মোঃ লিটন মিয়া, মোঃ ইয়াসিন মিয়া, ইমন চন্দ্র বিশ্বাসদেরকে সনাক্ত ও তাদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে র‌্যাব-১১, নারায়ণগঞ্জ এর অভিযানিক দল ১৪মে নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানা এলাকা হতে আসামীদেরকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় এবং অপহৃত ২ জন ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীদের ও উদ্ধারকৃত ভিকটিমদ্বয়কে পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রমের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

নেতাকর্মীদের নিরপেক্ষ ভুমিকায় দেখতে চান চেয়ারম্যান প্রার্থী শাহজালাল মিয়া

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলার আসন্ন আড়াইহাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলার সর্বস্তরের আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীদেরকে নিরপেক্ষ ভুমিকা পালন করার আহ্বান জানিয়ছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক দুই বারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ১৭ বছর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করা এবারের দোয়াত কলম প্রতীকের প্রার্থী শাহাজালাল মিয়া।

তিনি বৃহষ্পতিবার দুপুর ১২টায় উপজেলা সদরে তার বাড়ীতে এক সাংবাদিক সমাবেশে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে এ সব কথা বলেন। তিনি এ সময় ভোটারদেরকে নির্বাচন কেন্দ্রে যাওয়া ও তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে কোন হুমকী ধমকী কে ভয় না পাওয়ার আহ্বান জানান।

শাহাজালাল মিয়া বলেন, আমি দীর্ঘ ১৭ বছর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি, ১০ বছর উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। মিথ্যা মামরায় সাড়ে সাত মাস জেল খেটেছি। এ সময়ের মধ্যে আমি জানা সত্যে কোন অন্যায় কাজ করিনি। তথাপি অজান্তে যদি আমার ব্যবহারে কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন তা হলে আমাকে ক্ষমা করে দিয়ে নির্বাচনে নিরপেক্ষ ভুমিকা পালন করবেন।

সাধারণ ভোটারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা শতস্ফুর্ত ভাবে নির্বাচন কেন্দ্রে ভোট দিতে যাবেন এবং পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিবেন। কারো হুমকী ধমকীতে কোন ভয় পাবেননা। খাগকান্দা, কালাপাহাড়িয়া ও বিশনন্দী ইউনিয়নের ভোটারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমি নির্বাচিত হলে আমার দ্বারা আপনাদের কোন ক্ষতি হবে না, আমি নদী থেকে বালু কেটে নিয়ে আপনারদের বাড়ী ঘর ভাংবনা।

নির্বাচন চলাকালিন সময়ে জেলা প্রশান, উপজেলা প্রশাসন সহ সকল আইন প্রয়োগকারী সংস্থগুলোর কাছ থেকো নিরপেক্ষ ভুমিকা পালন করার আশ্বাস পেয়েছেন বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইন আপনাদের পাশে আছে। তা ছাড়া প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের দেয়া নির্দেশণার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি আশা করি প্রশাসন নিরপেক্ষ থাকলে একটি সুষ্ঠু সুন্দর নিরপেক্ষ নির্বাচন আমরা দেখতে পাব। তিনি এ সময় তার দোয়াত কলম প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য সাধারণ ভোটারদেরকে অনুরোধ করেন।

আডাইহাজারে চোরাই মোবাইল সহ গ্রেপ্তার ১

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ৯টি চোরাই মোবাইল সহ আল-আমিন নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত আলামিন উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের মৃত গেলমানের ছেলে।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার রাত ১১:০০ টার দিকে কল্যানদী বাজার এলাকা থেকে আলামিনেকে নয়টি চোরাই মোবাইলসহ আটক করে।

এলাকাবাসী জানায় দীর্ঘদিন যাবত আলামিন মোবাইল চোরদের সাথে আঁতাত করে মোবাইল ক্রয়- বিক্রয় করে আসছিল।
আড়াইহাজার থানার ওসি মোহাম্মদ আহসান উল্লাহ জানান তাকে মামলা দিয়ে বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জ কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ