ঘনঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির পদযাত্রা

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

অসহনীয় লোডশেডিং ও বিদ্যুৎ খাতে ব্যাপক দুর্নীতির প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে হাতে হারিকেন ও তালপাতার পাখা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান ও সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপু’র নেতৃত্বে নগরীতে পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করেছে মহানগর বিএনপি।

পদযাত্রায় মহানগর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা ফেস্টুন- ব্যানারে সুসজ্জিত হয়ে কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও অসহনীয় লোডশেডিং ও বিদ্যুৎ খাতে ব্যাপক দুর্নীতির প্রতিবাদে শ্লোগান দেন।

মঙ্গলবার (১৩ জুন) সকাল ১১টায় মহানগরীর খানপুর হাসপাতাল রোড থেকে এই পদযাত্রা কর্মসূচি শুরু করে মহানগর বিএনপি। পদযাত্রাটি খানপুর থেকে শুরু করে মেট্রো মোড় ঘুরে মিশন পাড়া দিয়ে চাষাড়া চত্বরে ঘুরে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে নারায়ণগঞ্জক্লাবের সামনে গিয়ে সমাপ্ত হয়।

এদিকে কেন্দ্র ঘোষিত পদযাত্রা কর্মসূচিকে সফল করার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি,যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিকদল, মহিলা দলসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা ব্যানার ফেস্টুন সুসজ্জিত হয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই শ্লোগানে শ্লোগানে খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে খানপুর হাসপাতালে এসে জড়ো হতে থাকে।

পদযাত্রা পূর্বে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, এই সরকার জনগণের সরকার না। সরকার জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করে দিয়েছে। দেশে আবারো হারিকেন ও কুপি বাতি জ্বলছে। আজকে ঘন ঘন বিদ্যুতের লোডশেডিং হচ্ছে। এই বিদ্যুতের কারণে একদিকে যেমন মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। অন্যদিকে শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো ধ্বংস দিতে চলে যাচ্ছে। বিদ্যুতের জন্য আজকে উৎপাদন ব্যবস্থা ব্যাহত হওয়ার কারণে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। গ্যাসের বিল দিয়েও জনগণ আজকে গ্যাস পাচ্ছে না। সরকার সর্বোপরি দুর্নীতির মাধ্যমে জ্বালানি খাতকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তারা তাদের দলীয় নেতাকর্মীদের দিয়ে এই খাতে দুর্নীতি করে কোটি কোটি টাকা কামিয়েছে। সেই দুর্নীতির প্রভাব এখন দেশের জনগণের উপরে পড়েছে। এ সকল আর সহ্য করা যায় না। এই সরকার যেমনভাবে দেশের মানুষকে দুর্ভিক্ষ উপহার দিয়েছে। একইভাবে দেশের মানুষের ভোটের অধিকার হরণ করেছে।

তিনি আরও বলেন, এই সরকারের অধীনে আর কোন সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। ওই চরমোনাই পীর সাব এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে গিয়েছিল। গতকাল বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে চরমোনাইয়ের পীর সাহেবকে যেভাবে মারধর করে রক্তাক্ত করা হয়েছে। ইসলামিক দলগুলোকে সহ্য করতে পারেনা। আর বিএনপি গেলে এই সরকার প্রশাসনকে লাগিয়ে দিয়ে এদেশের ভোটকে আরো কলঙ্কিত করে তুলবে। এতেই বুঝা যায় এই সরকার আমলে আর কোন নির্বাচন সুস্থ হবে না। আমরা এই সরকারকে সময় দিব না। আগামী দিনে আমাদের নেতা তারেক রহমানের নেতৃত্বে সারা বাংলাদেশে যে আন্দোলন সংগ্রামের ডাক দিবেন আন্দোলনের সেই আন্দোলন সংগ্রামে সবাই শরিক হবো। সবাই ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারের পতন ঘটাবো।

পদযাত্রা পূর্বে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপু হল ভর, আপনারা কি বিদ্যুৎ পান। বারবার কি লোডশেডিং হয়। আমরা গ্যাস ও বিদ্যুতের বিল কিন্তু ঠিকই দেই গ্যাস, বিদ্যুৎ পাইনা। তাহলে কি আপনারা আন্দোলন সংগ্রাম করতে প্রস্তুত। কার ডাকে আপনারা আন্দোলন সংগ্রাম করবেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ডাকে। আপনারা কি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চান। বিএনপির চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে। তার জন্য আমাদের সবাইকে আন্দোলন করতে হবে। সেই আন্দোলনের জন্য কি আপনারা প্রস্তুত। ইনশাআল্লাহ আগামী ঈদের পরে আমাদের রাজনৈতিক অভিভাবক তারেক রহমান এই ফ্যাসিস শেখ হাসিনার পতনের লক্ষ্যে যে আন্দোলনের ডাক দিবেন সেই আন্দোলনে কি সবাই শরিক হবেন। ইনশাল্লাহ আমরা মহানগর বিএনপি নেতাকর্মী আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপু’র সঞ্চালনায় পদযাত্রা কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এড. জাকির হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক এড. সরকার হুমায়ূন কবির, আনোয়ার হোসেন আনু, সদস্য মাহমুদুর রহমান, মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মমতাজ উদ্দিন মন্তু, সদস্য সচিব মনিরুল ইসলাম সজল, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাগর প্রধান, যুগ্ম আহ্বায়ক শাহেদ আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ সদর থানা বিএনপির সভাপতি মাসুদ রানা, সাধারণ সম্পাদক এড. এইচ এম আনোয়ার প্রধান, বন্দর থানা বিএনপি’র সাবেক আহ্বায়ক নুর মোহাম্মদ পনেছ, বন্দর থানা বিএনপি’র সভাপতি শাহেনশাহ আহম্মেদ, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক রানা, নারায়ণগঞ্জ সদর থানা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক শেখ সেলিম, নজরুল ইসলাম সরদার, মাকিত মোস্তাকিম শিপলু, আল আমিন প্রধান, সদস্য আবুল হোসেন রিপন, বন্দর থানা বিএনপি’র আহ্বায়ক সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আসাদুজ্জামান বাদল, ইকবাল হোসেন, কামরুল ইসলাম চুন্নু সাউদ, নাছির উল্লাহ্ টিপু, সোহেল খান বাবু, আলীরটেক ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, গোগনগর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি সভাপতি আক্তার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম মিয়াজী, মহানগর শ্রমিকদলের আহ্বায়ক এস এম আসলাম, সদস্য সচিব ফারুক হোসেন, মহানগর মহিলা দলের সভানেত্রী দিলারা মাসুদ ময়না, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শাখায়াত ইসলাম রানা, মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মমিনুর রহমান বাবু, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি রাকিবুর রহমান সাগর, সাধারণ সম্পাদক রাহিদ ইসতিয়াক শিকদারসহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সর্বশেষ সংবাদ