‘রাজনৈতিক নয়, বিদ্যুৎের মামলার ওয়ারেন্টে আনোয়ারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ’

সান নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদ প্যানেলের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী এডভোকেট এইচএম আনোয়ার প্রধান একটি বিদ্যুৎ মামলায় পরোয়ানাভুক্ত আসামী হয় এবং পুলিশ তাকে সেই পরোয়ানায় গ্রেপ্তার করেছে বলে জানিয়েছেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ মহসীন মিয়া।

তিনি জানান, আনোয়ার প্রধানকে কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কিংবা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেনি। তার নিজ বাড়ির বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করায় বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের দায়েরকৃত মামলায় পরোয়ানাভুক্ত আসামী হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে, যা পুলিশের নিয়মতান্ত্রিক। এইখানে অন্য কারো হস্তক্ষেপ নাই। কিন্তু এটাকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নির্বাচনে আইনজীবীদের বিভ্রান্ত করতে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার জন্য আইনজীবীদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে মেসেজ পাঠানো হচ্ছে, যা সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট।

সূত্রমতে, ১২ জানুয়ারি বুধবার গভীর রাতে শহরের মাসদাইর এলাকায় আনোয়ার হোসেনকে তার বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। এরপর বিএনপির আইনজীবীরা দাবি করেছেন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে আনোয়ার প্রধানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এমন বার্তা আইনজীবীদের মুঠোফোনে পাঠানো হয়।

এদিকে জানাগেছে, ২০১৫ সালের একটি সিআর মামলায় এইচএম আনোয়ার প্রধানের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎের মামলা দায়ের করা হয়। যার মামলা নং সিআর ১৫৪/১৫। এ মামলায় গত বছরের ১০ নভেম্বর আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। ১২ জানুয়ারি বুধবার রাতে মাসদাইর এলাকা থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হলে তার পক্ষে আইনি লড়াই করেন সমিতির সভাপতি মহাসীন মিয়া, সভাপতি প্রার্থী হাসান ফেরদৌস জুয়েল, সমিতির সেক্রেটারি মাহাবুবুর রহমান ও সেক্রেটারি প্রার্থী রবিউল আমিন রনি। আদালত আনোয়ার প্রধানকে সভাপতি মোহসীন মিয়ার জিম্মায় জামিন দেন।

তবে ১৩ই জানুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় আওয়ামী লীগের বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ প্যানেলের নির্বাচনী প্রচারণা শেষে আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে আইনজীবী সমাবেশে আনোয়ার প্রধানকে গ্রপ্তারের বিষয়টি খোলাসা করেন মহসীন মিয়া।

প্রচারণা শেষে তিনি বক্তব্যে আনোয়ার প্রধানকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি ইঙ্গিত করে বলেন, একটি অপপ্রচার আইনজীবীদের মাঝে চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানতে পারলাম বাড়ির বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করায় এবং বকেয়া থাকায় সেই মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়। পুলিশ সেই কারনে তাকে গ্রেপ্তার করেছে। এখানে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কি হলো? আইনজীবী সমিতির নির্বাচনের কি হইলো? আইনজীবীদের বিবেকের কাছে বিচার দিলাম। এই মিথ্যাচারের বিচার আপনারা করবেন।

তিনি আইনজীবীদের কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, যে লোক নিজের বাড়ির বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেনা, করার সামর্থ আছে কিন্তু বিল দেয় না, সেই লোক নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির মত একটা সমিতির সেক্রেটারি হওয়ার মত স্বপ্ন কিভাবে দেখে? এখন যারা মিথ্যাচার করছেন তাদের তো লজ্জা হওয়া উচিত। কারন বিদ্যুৎ বিল না দেয়ার কারনে তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় পরোয়ানা থাকায় গ্রেপ্তার হইছে, এখন তারা বলে বেড়াচ্ছে এটা রাজনৈতিক। তাদের লজ্জা তো হওয়া উচিত।

তিনি সাংবাদিকদের বিবেকের কাছে প্রশ্ন রেখে বলেন, যেই লোক নিজের বাড়ির বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করার কারনে গ্রেপ্তার হয়ে জেল হাজত খাটে তাকে কি নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির মত একটা সমিতির দায়িত্ব দিতে পারেন কি?

সবশেষে তিনি বলেন, আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক, জননেত্রী শেখ হাসিনার সৈনিক, নারায়ণগঞ্জের জননেতা একেএম শামীম ওসমানের সৈনিক, সেই সঙ্গে আমরা আইনজীবীদের পাশে ছিলাম আছি, থাকব এবং আইনজীবী সমিতির উন্নয়নে কাজ করব। আর সেই কারণেই আমরা যখন শুনেছি তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে আমি নিজে ব্যক্তিগতভাবে সিজিএম মহোদয়ের সঙ্গে কথা বলেছি, দেখা করেছি, আমি বলেছি, ঘটনা যাইহোক, তিনি আমাদের আইনজীবী সমিতির সদস্য এবং এই নির্বাচনে তিনি একজন প্রার্থী সুতরাং এই বিষয়টি বিবেচনায় নেবেন।